how to earn money online

পড়ালেখার পাশাপাশি ইন্টারনেটে অর্থ উপার্জনের সেরা ৫টি পদ্ধতি

ইন্টারনেটে অর্থ উপার্জনের অনেক পদ্ধতি রয়েছে। অনেকেই দ্বিধায় পড়েন, কোনটি করবেন এবং কোনটি করবেন না এই নিয়ে। ইন্টারনেট ব্যবহার করে কিভাবে অর্থ উপার্জন করা যায় তার ৫টি পদ্ধতি নিয়ে নিচে আলোচনা করছি।

 

১. গুগল এডসেন্স

গুগল এডসেন্স ইন্টারনেটে অর্থ উপার্জনের সবচেয়ে সেরা উপায় । মাসে কয়েক হাজার ডলার আয় করা যায় প্রোগ্রামিং বা এইধরনের কোন ক্ষেত্রে বিশেষ দক্ষতা না থেকেও। এমনকি গুগলের ব্লগার ব্যবহার করে কোনরকম খরচ ছাড়াই । আপনে Youtube এ ভিডিও আপলোড করেও গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন ।  আপনার প্রয়োজন শুধু সময় ব্যয় করা এবং চারিদিকে দৃষ্টি রেখে নিজের ওয়েবসাই বা ইউটিউব ভিডিওতে ভিজিটর আনার ব্যবস্থা করা। আপনার প্রয়োজন এমন একটি ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল যেখানে প্রচুর ভিজিটর ভিজিট করবেন।

কিভাবে শিখবেনঃ

গুগল অ্যাডসেন্স থেকে কিভাবে আয় করতে হয় কি কি কাজ কিভাবে করতে হয় কিভাবে সহজেই প্রচুর ভিজিটর ভিজিট আনতে হয় তা Trick Sure থেকে শিখতে পারবেন এবং সম্পূর্ণ ফ্রী ।

২. এফিলিয়েটেড মার্কেটিং

এফিলিটেড মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে সীমা হচ্ছে আকাশ। আপনি যত চেষ্টা করবেন তত বেশি আয় করবেন। ৭৫% পর্যন্ত কমিশন দেয়ার মত কোম্পানীও রয়েছে। আমাজন, ই-বে এফিলিয়েটেড মার্কেটিং কাজের জন্য অন্যতম। শুধুমাত্র এই কাজের জন্যই বিনামুল্যে ওয়েবসাইট তৈরী ও সেখানে বিভিন্ন পন্য যোগ করার ব্যবস্থা রয়েছে। যদিও এই ব্যবস্থায় আয় বেশি তারপরও এডসেন্সর এর পর ২য় অবস্থানে থাকার কারন হল একাজে বুদ্ধিমত্তা, মার্কেটিং এর দক্ষতা এবং পরিশ্রম অনেক বেশি।

কিভাবে শিখবেনঃ  এফিলিয়েটেড মার্কেটিং শিখতে চোখ রাখুন Trick Sure ওয়েবসাইটে । এখানে কয়েকটা Course আছে যেগুলো থেকে আপনে সহজেই এফিলিয়েটেড মার্কেটিং শিখতে পারবেন । এই Course সম্পূর্ণ ফ্রী ।

৩. ফ্রিল্যান্সিং

আপনে যদি কম্পিউটারের কোন কাজে দক্ষ হন । সেটা ফটোশপ ব্যবহার করে হোক অথবা গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, প্রোগ্রামিং থেকে ডাটা এন্ট্রি, ভিডিও এডিটিং কিংবা এনিমেশন যে কোন কিছুই হতে পারে। তাহলে আপনার জন্য ফ্রিল্যান্সিং উপযুক্ত। কাজ দেয়ার ক্ষেত্রে অনেকগুলি প্রতিস্ঠান রয়েছে মধ্যস্থতা করার জন্য । সেখানে নিজের নাম তালিকাভুক্ত করবেন (কোন খরচ নেই), তাদের কাজের তালিকা দেখে এপ্লাই করবেন, কাজ পাওয়ার পর কাজ করে জমা দিবেন। আপনার একাউন্টে সেই কাজের পারিশ্রমিক জমা হবে। ঘন্টাপ্রতি নির্দিষ্ট কাজ অনুযায়ী অথবা এককালীন চুক্তি অনুযায়ী ফ্রিলান্সিং কাজে পেমেন্ট দেয়া হয়। কাজের জটিলতা অনুযায়ী আয় কয়েক ডলার থেকে কয়েক হাজার ডলার পর্যন্তও হতে পারে এই চুক্তি। মধ্যস্থতাকারী থাকে বলে টাকা হাতছাড়া হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। www.freelancer.com , www.odesk.com ইত্যাদি এধরনের কাজে অন্যতম প্রতিস্ঠান।

কিভাবে শিখবেনঃ  গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, প্রোগ্রামিং থেকে ডাটা এন্ট্রি, ভিডিও এডিটিং কিংবা এনিমেশন এই কাজগুল শিখতে পারবেন Trick Sure ওয়েবসাইট থেকে এবং সম্পূর্ণ ফ্রী ।

 

 

৪. নিজে পন্য বিক্রি করা

লাভ বেশি থাকার পরও একে ৪ নম্বরে রাখতে হচ্ছে কারন নিজে বিক্রি করলে লাভ বেশি, সেইসাথে পরিশ্রমও বেশি। আপনি কিছু পন্য ঠিক করবেন এরপর ওয়েবসাইটে রেখে দেবেন। যিনি কিনতে চান তিনি সেখানে ক্লিক করে কিনবেন এবং আপনি সেটা তারকাছে পাঠিয়ে দেবেন। বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অনেক দেশের মানুষই কেনাকাটা করে অনলাইনে ।

কিভাবে নিজের পন্য বিক্রি করবেন এবং পন্য কথায় পাবে কিভাবে লাভ হবে এ বিষয়ে পুরনাঙ্গ গাইডলাইন দেওয়া আছে Trick Sure ওয়েব সাইটের “Ecommerce Course – ই-কমার্স ব্যবসার পুরনাঙ্গ গাইডলাইন” Course এ । এই Course সম্পূর্ণ ফ্রী ।

৫. অনলাইন বিজ্ঞাপন

জনপ্রিয় ওয়েবসাইটে এডসেন্স এর মত বিজ্ঞাপন রাখতে হবে এমন কোন কথা নেই, ছাপানো পত্রিকায় যেমন বিজ্ঞাপন দেয়া হয় সেভাবে আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন প্রচার করে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। আমেরিকায় ছাপানো বিজ্ঞাপনের আয়কে ছাড়িয়ে গেছে অনলাইন বিজ্ঞাপন। পত্রিকার মত সাইটের জন্য এই ব্যবস্থা সুবিধেজনক। একাজে সমস্যা হচ্ছে ব্যক্তিগতভাবে করা যায় না, প্রতিস্ঠান হিসেবে কাজ করতে হয়। তবে সেটা সংবাদপত্র হতে হবে এমন কথা নেই। মানুষের আগ্রহ রয়েছে এমন বিষয় নিয়ে ওয়েবসাইট হতে পারে।

কিভাবে শিখবেনঃ অনলাইন বিজ্ঞাপন এর উপর Trick Sure ওয়েব সাইটে Course চালু করা হবে ।

Comments

%d bloggers like this: